সোমবার, ১০ জুন ২০২৪, ০৪:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আবারো আলোচনায় সেই রবিজুল, দুজনকে তালাক দিতে ২২ গ্রাম প্রধানের চাপ : প্রতিবাদী কন্ঠ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর কলেজে হামলা ও ভাংচুরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন : প্রতিবাদী কন্ঠ কুষ্টিয়ায় লিজকৃত রেলের জমি বিক্রি করে বাড়ী নির্মান : প্রতিবাদী কন্ঠ সরকার কোন দূর্ণীতিবাজকে পৃষ্টপোশকতা করছে না -এমপি হানিফ : প্রতিবাদী কন্ঠ কুষ্টিয়ায় ভেজাল খাদ্য প্রতিরোধে ভ্রাম্যমান ল্যাবরেটরি ভ্যানের যাত্রা শুরু : প্রতিবাদী কন্ঠ কুষ্টিয়ায় নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক জনসচেতনতামূলক কর্মশালায় মিনিকেট নামে কোনো ধান নেই : প্রতিবাদী কন্ঠ সাংবাদিক ইউনিয়ন কুষ্টিয়ার সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত : প্রতিবাদী কন্ঠ কুষ্টিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পান চাষিদের মাঝে চেক বিতরণ : প্রতিবাদী কন্ঠ কুষ্টিয়ায় ১০ দিন পর ইজিবাইক চালকের লাশ উদ্ধার : প্রতিবাদী কন্ঠ বিজয়ী প্রার্থীকে ফুলের মালা পরিয়ে ভাইরাল দৌলতপুরের ওসি রফিকুল : প্রতিবাদী কন্ঠ

কুষ্টিয়ায় ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষক নাহারুল আটক : দৌলতপুর প্রতিনিধি

দৌলতপুর প্রতিনিধি :
  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৫৫৩ পাঠক পড়েছে

দৌলতপুর প্রতিনিধি : কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলার আল্লারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজি শাখার সহকারী শিক্ষক নাহারুল ইসলাম কে একাধিক ছাত্রীর যৌন হয়রানির অভিযোগে বুধবার দুপুরে বিদ্যালয় থেকে আটক করেছে দৌলতপুর থানা পুলিশ।

আল্লারদর্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামরুল হাসান বলেন, গত ১২/৯/২০২২ ইংরেজি তারিখে সহকারি শিক্ষক নাহারুল ইসলাম দীর্ঘ দিন ধরে তার নিজ বিদ্যালয়ের বিভিন্ন শ্রেনীর ছাত্রীদের যৌন হয়রানি করে আসছে বলে অভিযোগ করেন বিদ্যালয়ের একাধিক ছাত্রী। অভিযোগের ভিত্তিতে ১৪/৯/২০২২ ইংরেজি তারিখে বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদ কমিটির জরুরী মিটিং ডাকা হয়। মিটিংয়ে লোকজন উপস্থিত হতে শুরু করলে বিষয়টি বিদ্যালয় ছাড়িয়ে বিভিন্ন জায়গায় চলে যায়। এমতাবস্থায় বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা ক্লাস ছেলে বাহিরে বের হয়ে আসে এবং আন্দোলন শুরু করে। পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার কারণে দৌলতপুর থানা পুলিশকে জানালে থানা পুলিশ সহকারী শিক্ষক নাহারুলকে আটক করে নিয়ে যায় । বিষয়টা আমি উপজেলা নির্বাহি অফিসার ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কে অবহিত করেছি। নাহারুল ইসলাম-পূর্ব এরকম একটি ঘটনাতে ৮ মাস বহিস্কৃত ছিলেন। বিষয়টি অধিকতর তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করেন প্রধান শিক্ষক।

উক্ত বিদ্যালয়ের বিভিন্ন শ্রেনীর ছাত্রীরা বলেন, নাহারুল স্যার বিভিন্ন সময়ে আমাদের তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে আমাদের আপত্তিকর স্থানে হাত দেয় ও জড়িয়ে ধরে কিস করার কথা বলেন। এবং আমার যারা তার কাছে প্রায়ভেট পড়ি তাদের প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ভাবে যৌন হয়রানি করে। আমরা এই শিক্ষকের বিচার চাই।
বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি হুগোলবাড়িয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সেলিম চৌধুরী বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা কমিটির লোকজন জরুরি মিটিং কল করি। আজ দুপুরে মিটিংয়ে বসি। পরে ছাত্রীদের বক্তব্যো শুনি। বক্তব্য শুনে আমরা ব্যথিত হয়েছি বিদ্যালয়ের শিক্ষকের কাছ থেকে এ ধরনের আচরণ আমরা আশা করিনি। তাই কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিদ্যালয়ের পক্ষ বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সরদার আবু সালেক বলেন, মোবাইল ফোনে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমাকে জানানোর সাথে সাথে আমি বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়েছি। ছাত্রীদের বক্তব্য শুনে আমার কাছে মনে হয় নাহারুল ইসলাম এই কাজের সাথে জড়িত। তবে তদন্ত করে যদি জড়িত থাকার সতত্যা পাই বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে এক ছাত্রীর অভিভাবক বাদি হয়ে দৌলতপুর থানায় একটি এজাহার দিয়েছেন। এ বিষয়ে দৌলতপুর থানা অফিসার ইনচার্জ জাবীদ হাসান বলেন, নাহারুল নামে এক শিক্ষক কে আটক করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করে আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
© All rights reserved © 2021-2022 । প্রতিবাদী কন্ঠ
Design and Developed by DONET IT
SheraWeb.Com_2580